লিবিয়া থেকে ভূমধ্যসাগর হয়ে ইতালি মানব পাচার বেড়ে যাওয়ায় ২০১৫ সালের দ্বিতীয়ার্ধ থেকে গৃহযুদ্ধকবলিত আফ্রিকার দেশটিতে বাংলাদেশের লোকজনের যাওয়া বন্ধ করে দেন আদালত। পরের কয়েক বছর লিবিয়া হয়ে মানব পাচার বন্ধের জন্য কিছু পদক্ষেপও নেওয়া হয়। কিন্তু মানব পাচারকারীদের বিরুদ্ধে জোরালো কোনো ব্যবস্থা না নেওয়ায় আবার সক্রিয় হয়ে উঠেছে পাচারকারীরা। দেশে মানব পাচারের উৎস বন্ধ করতে হলে জোরালো রাজনৈতিক সদিচ্ছা জরুরি।

কূটনৈতিক ও আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষকেরা বলছেন, লিবিয়া হয়ে মানব পাচারে দেশি-বিদেশি শক্তিশালী গোষ্ঠী জড়িত। এদের খুঁটি এতটাই শক্তিশালী যে অতীতে ত্রিপোলিতে বাংলাদেশের কূটনীতিকদের হুমকি দিয়েছে। দূতাবাসের স্থানীয় কর্মীদের আটকে রাখার মতো সাহস দেখিয়েছে। তাই মানব পাচারের এই চক্রের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হলে বিভিন্ন দেশ এবং জাতিসংঘের মতো সংস্থাকে নিয়ে বাংলাদেশকে কাজ করতে হবে।

বিস্তারিত আরও পড়ুন